Avatar

কবিতা কেমন হবে?

দেবপ্রসাদ বসু (উপাসক)

কবিতা কেমন হবে? ------------*------------- দেবপ্রসাদ বসু ২/০২/২০২০ কবিতা কেমন হবে? কথায় বলে কৃষ্ণ কেমন --- তোমার মনটা যেমন। আসলে কবিতা হ'লো ইংরাজিতে যাকে বলে, ফাইন আর্ট অফ হার্ট। বাংলা ক'রে বললে দাঁড়ায়, হৃদয়ের সূক্ষ শিল্প। কবিতা হবে অল্প কথায় অধিক কথার ব্যঞ্জনা। কঠিন কথা সহজ ক'রে বলা। গভীর কথা হাল্কা চালে বলা। সততই, সঙ্গীত যেমন সুর প্রধান, ঠিক তেমনই কবিতা হ'লো ছন্দ প্রধান। এ যেন দুই ভাই-বোন, মানস পুত্র-কন্যা। ছন্দ বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। এ যেন উলবোনা ডিজাইনের মতো। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মানুষ তার মস্তিষ্কের নিত্য নতুন চিন্তা প্রবাহের সাহায্যে নতুন-নতুন ছন্দ আবিষ্কার করেন। সেটাই কলেদিনে সমাজে ছড়িয়ে পড়ে। সঙ্গীতের যেমন বিভিন্নতা আছে,--- আধুনিক, ক্লাসিক, শ্যামাসংগীত, ভজন, গজল, কাওয়ালি বা ভাটিয়ালি বা বাউল - মুর্শিদি ইত্যাদি জাতীয় যাকে এককথায় বলে মাটির গান, ঠিক তেমনই কবিতারও বিভিন্নতা আবিষ্কৃত মহতী মনের দ্বারা। যথা, --- পদ্য কবিতা, গদ্য কবিতা, ছড়া, গীতিকবিতা, হাইকু, লিমেরিক, সনেট ইত্যাদি। বহিরপ্রকৃতির সৃষ্টি বিভিন্নতার নিদর্শন যেমন পাওয়া যায় ফুল, ফল, সব্জি, মাছ ইত্যাদিতে, ঠিক তেমনই অন্তরপ্রকৃতির সৃষ্টি সম্ভারের বৈচিত্রতাও মন্দ নয় তার চিন্তা প্রকরণের হাত ধ'রে। এই চিন্তা চেতনার বৈচিত্রতা ও মেধা অনুযায়ী কবি, লেখক বা সাহিত্যিকের যেমন মেধা বৈচিত্রতা বিদ্যমান, ঠিক তেমনই মেধা ও মনন-সামর্থ অনুযায়ী পাঠকেরও বৈচিত্রতা আছে বা থাকাটাই স্বাভাবিক। এই যাকে আমরা কবিতা বলছি সেই কবিতা বহি:প্রকৃতি ও অন্তর-প্রকৃতির বিভিন্ন সৃষ্টি সমুহ সম্পর্কে আমাদের বিভিন্ন অভিজ্ঞ্যতা নির্ভর ভাবনার যে ছন্দবদ্ধ বহিঃপ্রকাশ যার প্রাচীন রূপ থেকে আধুনিক রূপ ক্রমাগত উন্নত হয়েছে এবং কালের স্বাভাবিক নিয়মে আরও হবে আশা করা যায় অতীত অভিজ্ঞতার নিরিখে। এটাই হ'লো বিবর্তন। এই যে নিরন্তর পরীক্ষা নিরীক্ষা বা কাটাছেঁড়া, তাকেই বলে পোষ্ট মর্ডানিজম। উত্তর আধুনিক থেকে উত্তরণ বা ভাবিকালের সাথে মানিয়ে নেওয়ার প্রস্তুতি। বিবর্তন সব সময়েই উর্দ্ধমুখী বা উন্নয়নমুখী। এটাই সময় ও সামর্থের পুরুষ্ঠতা। কবিতা লিখতে গিয়ে শুধু তার ব্যাকরণগত দিকে নজর দেওয়াই যথেষ্ট ও একমাত্র পথ নয়। তার ছন্দ, শরীর নির্মাণে দৃশ্য মধুরতা, একটা বিষয় ভিত্তিক অভিমুখ, একটা সামাজিক বার্তা ইত্যাদির ওপর নজর খুবই জরুরি। কারণ কবিতা শুধু মনোরঞ্জনের জন্য নির্মাণ হয় না। কবিতা একটা তাগিদ থেকেও নির্মিত হতে থাকে। তাই তো প্রকৃতির কবি, বিদ্রোহী কবি ইত্যাদি বিশেষণে ভূষিত করি আমরা কবিনাম্নী সত্ত্বা সকলকে। কবিতা লিখতে গিয়ে যদি অনবরত তার ব্যাকরণগত দিকে নজর দেওয়া বা মনোনিবেশ হয় তাহলে আবেগে আঘাত আসে যা কবিতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে বিপুল বাধাস্বরূপ হয়ে দাঁড়ায় গতিশীল নদীতে বাঁধ দেওয়ার মতো। এটা যেন স্বাভাবিক প্রকৃতির গতিশীল সৃষ্টিশীলতার প্রতি বিরুদ্ধাচরণ। তাই ব'লে কবিতা ছন্নছাড়া চরিত্রের হবে তাও নয়। কবিতা যদি শুধু অঙ্ক ক'ষে নির্মাণ করার চেষ্টা হয় তাহলে তার শরীরে চোখ কান নাক ইত্যাদি থাকবে হয়তো ভালো বা মনোমুগ্ধকর, কিন্তু তার আত্মার অভাব ঘটবে। কেননা, কবিতা আবেগের বিষয়। এই আবেগ জিনগত। রক্তে থাকে কবিতা। আত্মা না থাকলে সে কবিতা হবে দম দেওয়া কথাবলা পুতুলের মতো। তা দিয়ে মস্তিষ্ক ভরবে হয়ত কিন্তু মন ভরবে না। কবিতা মানুষকে উদ্বুদ্ধ করবে, অনুপ্রেরণা যোগাবে, জীবনে চলার পথে একটা দিশা দেবে। কবিতা পূর্ণাঙ্গ সাহিত্যের মতো সমাজ সংস্কারের ভূমিকা নেবে, সাথে সাথে সমজ চেতনায় সমৃদ্ধির ঘটাতেও সক্ষম হবে। তাই সাহিত্যের সাথে সাথে তার একটি বিশেষ অঙ্গ কবিতা হবে জীবনমুখী, অন্তর বিশেষজ্ঞ। প্রতিটি বলিষ্ঠ কবিতার যেমন থাকবে সাহিত্যমুল্য, ঠিক তেমনই থাকবে তার সামাজিকমূল্য। কবিতার চরিত্রও হবে বিভিন্ন ধরনের। কোনও কবিতা মঞ্চে পাঠযোগ্য বা আবৃত্তি যোগ্য যেগুলোতে থাকবে নাটকীয়তা, কোনও কোনও কবিতা নিরালায় ব'সে পড়বার পক্ষে উপযুক্ত ভাবগভীর ও ভাবগম্ভীর। গানে যেমন সুর এদিক ওদিক হলে কানে বাজবে, ঠিক তেমনই কবিতায় ছন্দ এদিক ওদিক হলে মনে বাজবে। এটা কবিতা লিখতে-লিখতে ও পড়তে-পড়তে রপ্ত হবে। তাই কবিতা-আবৃত্তি অনুশীলন কেন্দ্রে শেখা যায় যেমন কবিতা-লেখা শেখার কোনও অনুশীলন কেদ্র হয় না বা হতে পারে না। সৃষ্টি স্বত:স্ফূর্ত। দোকানে চপ তৈরি আর মনে কবিতা সৃষ্টি এক নয়। তৈরি ও সৃষ্টির তফাৎ এইখানেই। সব শেষে কবিতা কেমন হবে পুনরায় একবার এক ঝলকে সারসংক্ষেপে দেখে নেওয়া যাক। কবিতা হবে স্বত:স্ফূর্ত। কবিতার নিজস্ব একটা ভাষা থাকবে। কবিতা ছন্দ রূপক চিত্রকল্প অলঙ্কার ইত্যাদির সমাহার। কবিতায় সামাজিক একটা বার্তা থাকবে। কবিতার শরীরেও একটা সৌন্দর্য্য থাকবে। থাকবে শ্রুতি-মধুরতা। তার থাকবে গভীরতা এবং অন্তর্নিহিত একটা গুরুগম্ভীর অর্থ। কবিতা হবে সমাজ সংস্কারক, সমাজ সচেতক সর্বোপরি সামাজিক একখানা দলিল এবং সময়ের দর্পণ। কবিতা মনোরঞ্জনী প্রতিবাদী প্রেম ও প্রকৃতি বিষয়ক সর্বোপরি মনস্তাত্বিক ও গভীর দর্শনের বিষয়। একসের দূধ ফুটিয়ে এক ছটাক ক্ষীর #কবিতা_হবে_কন্সাইজ_ফর্ম_অফ_ইলাস্ট্রেশন। সামান্য কথায় বহু কথা ব্যক্ত করার ক্ষমতা। কবিতা হবে বিদ্রোহী আবার প্রণয়ী সালঙ্কারা নারীর মতন, কবিতা হৃদয়ের ধন, অমুল্যরতন। ভালো কবিতা জন্ম দেওয়া যায় না, ভালো কবিতা ভিতর থেকে আসে দেখা শোনা বিশ্বাস অভিজ্ঞতার ওপর ভর ক'রে সময়ের দাবি রেখে চলমান ঘটমান বিষয়ের টাটকা স্মৃতি উস্কে দিয়ে। কবিতা শেখা যায় না। কবিতা মনের মনগড়া বায়না মেটানো বা আবদার মেটানোর জন্য নয়। কবিতা একটা তাগিদ। ঝর্না যেমন নেমে আসে পাহাড়ের কোল ঘেঁসে ঠিক তেমনই মনের কোল ঘেঁসে নেমে আসে আবেগ কল্পনা মিশ্রিত চিন্তাধারা বাস্তবের মাটিতে এক এক সময় এক এক রকম ছন্দে নাচতে নাচতে আমাদের বিমোহিত ক'রে। * * * * *

Click Here Clap

No. of Clap : 0

Total Comments:0

Please Login to give comment